মাতৃস্তুতি (মায়ের আগমনী স্তোত্রপাঠ)

এই কবিতা ইতিমধ্যে 120 বার পড়া হয়েছে!

মাতৃস্তুতি (মায়ের আগমনী স্তোত্রপাঠ)

লক্ষ্মণ ভাণ্ডারী

 

আশ্বিনের শারদ প্রভাতে,

দিকে দিকে নিনাদিত হয় মহাশঙ্খ;

বেজে ওঠে জয়ঢাক, কাঁসর ঘণ্টা,

দিকে দিগন্তে আগমনীর সুর

ধ্বনি প্রতিধ্বনিত হতে থাকে।

শারদ-আকাশে প্রত্যুষেই

সোনার রবি উঁকি দেয়।

সোনালী রোদ ঝরে পড়ে

নীল আকাশের আঙিনায়।

মা আসছেন! দেবী দশভূজা,

আদ্যাশক্তি মহামায়া দেবী দূর্গা।

তাঁর আগমনে ধরণী হয়ে ওঠে

প্রাণময়ী, আনন্দোচ্ছল।

শারদীয়া দুর্গাপূজা জাতীয়

জীবনে সর্বাঙ্গীন। তাই বাংলার

ঘরে ঘরে শুদ্ধচিত্তে করা হয়

মায়ের আবাহন। সাজানো হয়

আম্রপল্লব সহযোগে মঙ্গলঘট।

ধান্যদূর্বা সহ পাতা সেই মঙ্গল ঘট।

বেজে ওঠে শঙ্খ।

মেয়েরা করে উলুধ্বনি।

দিকে দিকে শুরু হয়

মাতৃশক্তির আরাধনা।

 

ত্বং স্বাহা, ত্বং স্বধা, ত্বং হি বষটকার স্মরাত্মিকা!

স্বধা ত্বমক্ষরে দেবী ত্রিধা মাত্রাতিকাস্থিতা।

 

অর্ধমাত্রাস্থিতা নিত্যা যানুচর্যা বিশেষতঃ

ত্বমেব সন্ধ্যা সাবিত্রী ত্বং দেবী জননী পরাঃ।

সর্বভূতা যদা দেবী স্বর্গমুক্তি প্রদায়িনী।

ত্বং স্তুতি স্তুতয়ে কা বা ভবন্তি পরমোক্তয়।।

 

সর্বস্য বুদ্ধি রূপেন জনস্য হৃদি সংস্থিতি,

স্বর্গাপবর্গদে দেবী নারায়নী নমোহস্তুতে।।

 

যা দেবি সর্বভূতেষু মাতৃরূপেণ সংস্থিতা।

নমস্তসৈঃ নমস্তস্যৈঃ নমস্তস্যৈ নমোনমঃ।।

 

যা দেবি সর্বভূতেষু শক্তিরূপেণ সংস্থিতা।

নমস্তসৈঃ নমস্তস্যৈঃ নমস্তস্যৈ নমোনমঃ।।

 

যা দেবি সর্বভূতেষু লক্ষ্মীরূপেণ সংস্থিতা।

নমস্তসৈঃ নমস্তস্যৈঃ নমস্তস্যৈ নমোনমঃ।।

.. .. ..

ঔঁ দ্বৌ শান্তিঃ, অন্তরীক্ষ্যং শান্তিঃ,

পৃথিবীং শান্তিঃ। শান্তিঃরোষধয়,

শান্তিঃ বনস্পতয়,

শান্তিঃ শান্তিরেব।

শান্তিঃ সামা শান্তিঃ রেধি।

ঔঁ আপদং শান্তিঃ

যত্র এবাগত পাপং তত্রৈব প্রতিগচ্ছতু।

ঔঁ শান্তিঃ শান্তিঃ শান্তিঃ

Print Friendly

Author Profile

লক্ষ্মণ ভাণ্ডারী
লক্ষ্মণ ভাণ্ডারী
লক্ষ্মণ ভাণ্ডারী –নামেই কবির পরিচয়। কবির বাড়ি পশ্চিমবঙ্গে বর্ধমান জেলার পাথরচুড় গ্রামে। প্রকৃতির সাথে পরিচয় ছোটবেলা থেকেই। বর্তমানে কবি বাংলা কবিতার আসর, বাংলার কবিতা ও কবিতা ক্লাবের সাথে যুক্ত। অবসর সময়ে কবি কবিতা লেখেন ও স্বরচিত কবিতা আবৃত্তি করেন। বর্তমানে কবি কবিতা মুক্তমঞ্চ, প্রজন্ম ফোরাম, কবি ও কবিতা, আর কবিতা ক্লাবের সাথে যুক্ত। সামহোয়্যার ব্লগ, কবির কয়েকটি নিজস্ব ব্লগ, লক্ষ্মণ ভাণ্ডারীর কবিতা, আমার কবিতা, Get Bengali Status, কবিতার ছেঁড়াপাতা, ব্লগ চালু আছে। কাব্য ও কবিতা ওয়েবসাইটের সাথে যুক্ত। কবির প্রথম কবিতা প্রকাশিত হয় বাহাদুর উচ্চ বিদ্যালয় পত্রিকায়। ইকড়া বাসন্তী বিজয় উচ্চ-মাধ্যমিক বিদ্যালয় পত্রিকায় দ্বিতীয় কবিতা প্রকাশিত হয়। তৃতীয় কবিতা প্রকাশিত হয় ত্রিবেণীদেবী ভালোটিয়া উচ্চ মহাবিদ্যালয় পত্রিকায়। পরে বিভিন্ন মাসিক পত্রিকা, কালকেতু, অম্বুজা, ইত্যাদিতে নিয়মিত কবিতা প্রকাশিত হতে থাকে। কবির প্রকাশিত প্রথম সাহিত্য পত্রিকা দুর্বার সাহিত্য পত্রিকা, ভোরের আলো, পদাতিক, ধাঁধার খেলাঘর (ছোটদের পত্রিকা) নিয়মিত প্রকাশিত হয়ে চলেছে।
0.00 avg. rating (0% score) - 0 votes

Enjoyed this post? Share it!