গাঁয়ের মাঝে তালদিঘি

এই কবিতা ইতিমধ্যে 141 বার পড়া হয়েছে!

গাঁয়ের মাঝে তালদিঘি

লক্ষ্মণ ভাণ্ডারী

 

গাঁয়ের মাঝে তালদিঘি আছে শীতল তার জল,

দিঘির জলে শালুক ফোটে, ফোটে নীল কমল।

সোনার রবি ছড়ায় কিরণ দিঘির সুশীতল জলে,

পানকৌড়িরা ডুব দেয় এসে রোজ সকাল হলে।

 

দিঘির পাড়ে রাস্তার ধারে আছে প্রকাণ্ড বটগাছ,

গাছের তলে ভালুকওয়ালা দেখায় ভালুক নাচ।

বাবুপাড়ার ওই স্কুলেতে যেই ঘণ্টা বেজে উঠে,

বইখাতা নিয়ে পাড়ার ছেলেরা স্কুলে যায় ছুটে।

 

বেলা চারটে বাজলে পরে স্কুলে ছুটির ঘণ্টা হয়,

যেতে হবে যে মায়ের কাছে আর দেরি না সয়।

পশ্চিমেতে সূর্যটা রোজ ডুবে যায় দিনের শেষে,

আলোক লুকায় বনের ধারে নীল পাহাড় ঘেঁষে।

 

তালদিঘিতে আঁধার নামে জোনাকিরা সব জ্বলে,

একটু পরেই চাঁদের আলো ছড়িয়ে পড়ে জলে।

Print Friendly

Author Profile

লক্ষ্মণ ভাণ্ডারী
লক্ষ্মণ ভাণ্ডারী
লক্ষ্মণ ভাণ্ডারী –নামেই কবির পরিচয়। কবির বাড়ি পশ্চিমবঙ্গে বর্ধমান জেলার পাথরচুড় গ্রামে। প্রকৃতির সাথে পরিচয় ছোটবেলা থেকেই। বর্তমানে কবি বাংলা কবিতার আসর, বাংলার কবিতা ও কবিতা ক্লাবের সাথে যুক্ত। অবসর সময়ে কবি কবিতা লেখেন ও স্বরচিত কবিতা আবৃত্তি করেন। বর্তমানে কবি কবিতা মুক্তমঞ্চ, প্রজন্ম ফোরাম, কবি ও কবিতা, আর কবিতা ক্লাবের সাথে যুক্ত। সামহোয়্যার ব্লগ, কবির কয়েকটি নিজস্ব ব্লগ, লক্ষ্মণ ভাণ্ডারীর কবিতা, আমার কবিতা, Get Bengali Status, কবিতার ছেঁড়াপাতা, ব্লগ চালু আছে। কাব্য ও কবিতা ওয়েবসাইটের সাথে যুক্ত। কবির প্রথম কবিতা প্রকাশিত হয় বাহাদুর উচ্চ বিদ্যালয় পত্রিকায়। ইকড়া বাসন্তী বিজয় উচ্চ-মাধ্যমিক বিদ্যালয় পত্রিকায় দ্বিতীয় কবিতা প্রকাশিত হয়। তৃতীয় কবিতা প্রকাশিত হয় ত্রিবেণীদেবী ভালোটিয়া উচ্চ মহাবিদ্যালয় পত্রিকায়। পরে বিভিন্ন মাসিক পত্রিকা, কালকেতু, অম্বুজা, ইত্যাদিতে নিয়মিত কবিতা প্রকাশিত হতে থাকে। কবির প্রকাশিত প্রথম সাহিত্য পত্রিকা দুর্বার সাহিত্য পত্রিকা, ভোরের আলো, পদাতিক, ধাঁধার খেলাঘর (ছোটদের পত্রিকা) নিয়মিত প্রকাশিত হয়ে চলেছে।
0.00 avg. rating (0% score) - 0 votes

Enjoyed this post? Share it!